ঢাকা ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo এক নজরে যশোর জেলা Logo বান্দরবানে তৈরি হচ্ছে ভোজ্য তেল তুলার বীজ থেকে Logo আবেদন অনলাইনে, চাকরি দিচ্ছে মেঘনা গ্রুপ Logo বিষাক্ত সাপ কামড়ালে করণীয় কী, বিষাক্ত সাপ চিনবেন কীভাবে, জানালেন চিকিৎসক Logo যানজটে পড়লে ট্রাফিক পুলিশের সহায়তা নিতে পারবেন এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা Logo ব্ল্যাকমেইল করে চলতো দেহব্যবসা, অনলাইনে শত শত তরুণীর অশ্লীল বিজ্ঞাপন Logo কতটা সুরক্ষিত বাংলাদেশ, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ঝুঁকি মোকাবিলায় বৈশ্বিক সূচক প্রকাশ Logo বিএনপির ছয় নেতাকে আমন্ত্রণ জানাল আ.লীগ ফখরুলসহ Logo সেই শিক্ষকের স্ত্রী মারা গেলেন বিনা চিকিৎসায় পেনশন আটকে থাকাই Logo সুগন্ধি ব্যবহারের বিষয়ে হাদিসে যা এসেছে-জুমার দিনে

সুগন্ধি ব্যবহারের বিষয়ে হাদিসে যা এসেছে-জুমার দিনে

স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট সময় : ০৩:১৯:৩৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪ ১৮ বার পড়া হয়েছে

জুমার দিনে সুগন্ধি ব্যবহারের বিষয়ে হাদিসে যা এসেছে। ছবি: সংগৃহীত

জুমাবার হলো সপ্তাহের শ্রেষ্ঠ দিন। হাদিসে এসেছে, আবূ হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, সূর্য উদয়ের দিবসগুলোর মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ দিন হলো জুমার দিবস। সে দিনে আদম (আ.) কে সৃষ্টি করা হয়। তাকে ওইদিন জান্নাতে প্রবেশ করানো হয় এবং তা থেকে ওইদিন বের করা হয়। আর কেয়ামতও হবে জুমার দিবসেই। এ ক্ষেত্রে বিনা কারণে জুমা পরিত্যাগেও কঠোর নিষেধ রয়েছে।

আবূল জা’দ আয্-যামরী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি অবহেলা করে তিন জুমা পরিত্যাগ করে, আল্লাহ তার হৃদয় মোহরাঙ্কিত করে দেন। (তিরমিজী, হাদিস: ৫০০; ইবনু মাজাহ, হাদিস: ১১২৫) আবার জুমার দিনে বান্দার জন্য বিশেষ ফজিলতও রয়েছে। আওস ইবনু আওস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, যে জুমার দিনে সকাল সকাল গোসল করল এবং গোসল করালো, তারপর ইমামের কাছে গিয়ে বসে চুপ করে মনোযোগ দিয়ে খুতবা শুনলো তার প্রত্যেক কদমের বিনিময়ে এক বছরের সিয়াম ও কিয়ামের (সালাতের) সওয়াব। (তিরমিজী, হাদিস: ৪৯৬)

অপর হাদিসে এসেছে, সালমান ফারসী (রা.) বলেন- রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি জুমার দিন গোসল করে এবং যথাসম্ভব উত্তমরূপে পবিত্রতা অর্জন করে, এরপর তেল মেখে নেয় অথবা সুগন্ধি ব্যবহার করে, তারপর (মসজিদে) যায়, আর দু’জনের মধ্যে ফাঁক করে না এবং তার ভাগ্যে নির্ধারিত পরিমাণ সালাত (নামাজ) আদায় করে ও ইমাম যখন (খুতবার জন্য) বের হন তখন চুপ থাকে, তার এ জুমা এবং পরবর্তী জুমার মধ্যবর্তী যাবতীয় গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়। (সহিহ বুখারি, হাদিস: ৮৬৪)

এ ক্ষেত্রে জুমার দিনে সালাতের আগে আতর-সুগন্ধি ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক নয় বা আবশ্যকীয় নয়। এটি সুন্নত ও জুমার দিনের সৌন্দর্য ও প্রস্তুতিগুলোর একটি। তবে মনে রাখতে হবে, অ্যালকোহলজাতীয় সুগন্ধি কোনোভাবেই ব্যবহার করা যাবে না। এ ক্ষেত্রে অ্যালকোহলমুক্ত সুগন্ধি ব্যবহার করা উত্তম।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

Categories

সুগন্ধি ব্যবহারের বিষয়ে হাদিসে যা এসেছে-জুমার দিনে

আপডেট সময় : ০৩:১৯:৩৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪

জুমাবার হলো সপ্তাহের শ্রেষ্ঠ দিন। হাদিসে এসেছে, আবূ হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, সূর্য উদয়ের দিবসগুলোর মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ দিন হলো জুমার দিবস। সে দিনে আদম (আ.) কে সৃষ্টি করা হয়। তাকে ওইদিন জান্নাতে প্রবেশ করানো হয় এবং তা থেকে ওইদিন বের করা হয়। আর কেয়ামতও হবে জুমার দিবসেই। এ ক্ষেত্রে বিনা কারণে জুমা পরিত্যাগেও কঠোর নিষেধ রয়েছে।

আবূল জা’দ আয্-যামরী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি অবহেলা করে তিন জুমা পরিত্যাগ করে, আল্লাহ তার হৃদয় মোহরাঙ্কিত করে দেন। (তিরমিজী, হাদিস: ৫০০; ইবনু মাজাহ, হাদিস: ১১২৫) আবার জুমার দিনে বান্দার জন্য বিশেষ ফজিলতও রয়েছে। আওস ইবনু আওস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, যে জুমার দিনে সকাল সকাল গোসল করল এবং গোসল করালো, তারপর ইমামের কাছে গিয়ে বসে চুপ করে মনোযোগ দিয়ে খুতবা শুনলো তার প্রত্যেক কদমের বিনিময়ে এক বছরের সিয়াম ও কিয়ামের (সালাতের) সওয়াব। (তিরমিজী, হাদিস: ৪৯৬)

অপর হাদিসে এসেছে, সালমান ফারসী (রা.) বলেন- রাসুল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি জুমার দিন গোসল করে এবং যথাসম্ভব উত্তমরূপে পবিত্রতা অর্জন করে, এরপর তেল মেখে নেয় অথবা সুগন্ধি ব্যবহার করে, তারপর (মসজিদে) যায়, আর দু’জনের মধ্যে ফাঁক করে না এবং তার ভাগ্যে নির্ধারিত পরিমাণ সালাত (নামাজ) আদায় করে ও ইমাম যখন (খুতবার জন্য) বের হন তখন চুপ থাকে, তার এ জুমা এবং পরবর্তী জুমার মধ্যবর্তী যাবতীয় গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়। (সহিহ বুখারি, হাদিস: ৮৬৪)

এ ক্ষেত্রে জুমার দিনে সালাতের আগে আতর-সুগন্ধি ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক নয় বা আবশ্যকীয় নয়। এটি সুন্নত ও জুমার দিনের সৌন্দর্য ও প্রস্তুতিগুলোর একটি। তবে মনে রাখতে হবে, অ্যালকোহলজাতীয় সুগন্ধি কোনোভাবেই ব্যবহার করা যাবে না। এ ক্ষেত্রে অ্যালকোহলমুক্ত সুগন্ধি ব্যবহার করা উত্তম।